• Breaking News

    গুইসাপ খাওয়া কি জায়েজ, গুইসাপ খাওয়া কি হালাল, গুইসাপ হালাল না হারাম ?

    গুইসাপ খাওয়া জায়েজ আছে কি?
    حدثنا أبو كريب، حدثنا عبد الرحيم بن سليمان، عن داود بن أبيهند، عن أبي نضرة، عن أبي سعيد الخدري، قال نادى رسول الله ـ صلى الله عليه وسلم ـ رجل من أهل الصفة حين انصرف من الصلاة فقال يا رسول الله إن أرضنا أرض مضبة فما ترى في الضباب قال ‏ "‏ بلغني أنه أمة مسخت ‏"‏ ‏.‏ فلم يأمر به ولم ينه عنه ‏.‏

    আবূ সাঈদ আল-খুদরী (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) যখন নামায শেষে ফিরছিলেন তখন আহলে সুফ্‌ফার মধ্যকার এক ব্যক্তি তাঁকে ডেকে বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আমাদের এলাকায় প্রচুর গুইসাপ পাওয়া যায়। এই প্রানী সম্পর্কে আপনার কী অভিমত? তিনি বলেনঃ আমি জানতে পেরেছি যে, একটি সম্প্রদায়ের সৃষ্টিগত রূপ সম্পূর্ণ পরিবর্তিত করে দেয়া হয়েছে। অতএব তিনি তা খাওয়ার নির্দেশ দেননি এবং তা খেতে নিষেধও করেননি।
    [সুনানে ইবনে মাজাহ,৩২৪০] মুসলিম ১৯৯১, আহমাদ ১০৬৩০, ১০৭৬০, ১১২০৫। তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।

    حدثنا محمد بن المصفى الحمصي، حدثنا محمد بن حرب، حدثنا محمد بن الوليد الزبيدي، عن الزهري، عن أبي أمامة بن سهل بن حنيف، عن عبد الله بن عباس، عن خالد بن الوليد، أن رسول الله ـ صلى الله عليه وسلم ـ أتي بضب مشوي فقرب إليه فأهوى بيده ليأكل منه فقال له من حضره يا رسول الله إنه لحم ضب ‏.‏ فرفع يده عنه فقال له خالد يا رسول الله أحرام الضب قال ‏ "‏ لا ولكنه لم يكن بأرضي فأجدني أعافه ‏"‏ ‏.‏ قال فأهوى خالد إلى الضب فأكل منه ورسول الله ـ صلى الله عليه وسلم ـ ينظر إليه ‏.‏

    খালিদ ইবনুল ওয়ালীদ (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর জন্য ভুনা গুইসাপ এনে তাঁর সামনে পরিবেশন করা হলে তিনি তা খাওয়ার জন্য হাত বাড়ালেন। তাঁর নিকটে উপস্থিত এক ব্যক্তি বললো, এটা গুইসাপের গোশত। তিনি নিজের হাত তুলে নিলেন। খালিদ (রাঃ) তাঁকে জিজ্ঞাসা করেন, গুইসাপ কি হারাম? তিনি বলেন, না, কিন্তু তা আমার এলাকার প্রানী নয়। তাই এটাতে আমার রুচি হয় না। খালিদ (রাঃ) হাত বাড়িয়ে তা নিলেন এবং আহার করলেন। আর রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) তার দিকে তাকিয়ে দেখলেন।
    [সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ৩২৪১, সহীহুল বুখারী ৫৩৫১, ৫৪০০, ৫৪৩৭, মুসলিম ১৯৪৬, নাসায়ী ৪৩১৬, ৪৩১৭, আবূ দাউদ ৩৭৯৪, আহমাদ ১৬৩৭১, ২৬২৭৪, মুয়াত্তা মালেক ১৮০৫, দারেমী ২০১৭। তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।

    حدثنا أبو بكر بن أبي شيبة، حدثنا محمد بن فضيل، عن حصين، عن زيد بن وهب، عن ثابت بن يزيد الأنصاري، قال كنا مع النبي ـ صلى الله عليه وسلم ـ فأصاب الناس ضبابا فاشتووها فأكلوا منها فأصبت منها ضبا فشويته ثم أتيت به النبي ـ صلى الله عليه وسلم ـ فأخذ جريدة فجعل يعد بها أصابعه فقال ‏ "‏ إن أمة في بني إسرائيل مسخت دواب في الأرض وإني لا أدري لعلها هي ‏"‏ ‏.‏ فقلت إن الناس قد اشتووها فأكلوها فلم يأكل ولم ينه ‏.‏

    সাবিত বিন ইয়াযিদ আল-আনসারী (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    আমরা নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর সাথে ছিলাম। লোকেরা গুইসাপ ধরে তা ভুনা করে আহার করলো। আমিও একটি গুইসাপ ধরে তা ভুনা করে নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর নিকট নিয়ে এলাম। তিনি একটি কাঠ তুলে নিয়ে তা দিয়ে সেটির আঙ্গুল গননা করতে লাগলেন, অতঃপর বলেনঃ বনী ইসরাঈলের একটি সম্প্রদায়ের চেহারা বিকৃত হয়ে পৃথিবীর জন্তুতে পরিণত হয়। আমি জানি না, এটাই সেই প্রাণী কিনা। আমি বললাম লোকেরা তা ভুনা করে খেয়েছে। কিন্তু তিনি তা আহারও করেননি এবং আহার করতে নিষেধও করেননি।
    সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদিস নং ৩২৩৮, নাসায়ী ৪৩২০, ৪৩২১, ৪৩২২, আবূ দাউদ ৩৭৯৫, আহমাদ ১৭৪৬৯, দারেমী ২০১৬। তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।


    حدثنا محمد بن المصفى، حدثنا سفيان بن عيينة، عن عبد الله بن دينار، عن ابن عمر، قال قال رسول الله ـ صلى الله عليه وسلم ـ ‏ "‏ لا أحرم ‏"‏ ‏.‏ يعني الضب ‏.‏

    ইবনু উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    তিনি বলেন, রাসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বলেছেন, আমি গুইসাপ হারাম বলি না।
    সহীহুল বুখারী ৫৫৩৬, ৭২৬৭, মুসলিম ১৯৪৩, ১৯৪৪, তিরমিযী ১৭৯০, নাসায়ী ৪৩১৪, ৪৩১৫, আহমাদ ৪৫৪৮, ৪৫৫৯,৫০৩৮, ৫২৩৩, ৫২৫৮, ৫৪১৭, ৫৫০৫, ৫৫৪০, ৬১৭৮, ৬৪২৯, মুয়াত্তা মালেক ১৮০৬ দারেমী ২০১৫। তাহকীক আলবানীঃ সহীহ।


    حدثني مالك عن عبد الرحمن بن عبد الله بن عبد الرحمن بن أبي صعصعة عن سليمان بن يسار أنه قال

    دخل رسول الله صلى الله عليه وسلم بيت ميمونة بنت الحارث فإذا ضباب فيها بيض ومعه عبد الله بن عباس وخالد بن الوليد فقال من أين لكم هذا فقالت أهدته لي أختي هزيلة بنت الحارث فقال لعبد الله بن عباس وخالد بن الوليد كلا فقالا أولا تأكل أنت يا رسول الله فقال إني تحضرني من الله حاضرة قالت ميمونة أنسقيك يا رسول الله من لبن عندنا فقال نعم فلما شرب قال من أين لكم هذا

    فقالت أهدته لي أختي هزيلة فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم أرأيتك جاريتك التي كنت استأمرتيني في عتقها أعطيها أختك وصلي بها رحمك ترعى عليها فإنه خير لك

    সুলায়মান ইব্নু ইয়াসার (রহঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) মায়মুনা বিন্ত হারিস (রাঃ)-এর ঘরে প্রবেশ করলেন। সেখানে তিনি সান্ডার (গুইসাপের) সাদা গোশত দেখতে পেলেন। তাঁর সঙ্গে আবদুল্লাহ্ ইব্নু আব্বাস (রাঃ) ও খালিদ ইব্নু ওলীদ (রাঃ) ছিলেন। অতঃপর রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) জিজ্ঞেস করলেন, তোমার নিকট এই গোশত কোথা হতে এল? মায়মুনা (রাঃ) উত্তর দিলেন, আমার ভগ্নি হুযায়লা বিনতে হারিস (রাঃ) আমার নিকট হাদিয়া পাঠিয়েছে। অতঃপর রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) আবদুল্লাহ্ ইবনু আব্বাস (রাঃ) ও খালিদ ইবনু ওয়ালীদকে বললেন, তোমরা খাও। তাঁরা বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আপনি খাবেন না? রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেন, আমার কাছে আল্লাহ্‌র পক্ষ হতে কেউ না কেউ আগমন করেন। (এতে এক প্রকার গন্ধ আছে, ফলে আগমনকারীর কষ্ট হবে; তাই আমি খাব না।) মায়মুনা বললেন, ইয়া রাসূলুল্লাহ! আপনাকে দুধ পান করাব কি? রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেন, হ্যাঁ। অতঃপর দুধ পান করে রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) জিজ্ঞেস করলেন, এই দুধ তোমার নিকট কোথা হতে এল? মায়মুনা (রাঃ) বললেন, আমার ভগ্নি হুযায়লা আমার কাছে হাদিয়া পাঠিয়েছে। অতঃপর রাসূলুল্লাহ্ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) বললেন, যদি তুমি তোমার সেই দাসী তোমার ভগ্নিকে দিয়ে দাও যাকে আযাদ করা সম্বন্ধে তুমি আমার কাছে পরামর্শ চেয়েছিলে, আত্মীয়তার খাতির কর এবং সেই দাসী তার ছাগল চরাবে, তা হলে উহা তোমার জন্য খুবই উত্তম হবে। [১] (হাদীসটি ইমাম মালিক এককভাবে বর্ণনা করেছেন)

    [১] সান্ডাকে আরবীতে ضب বলে। ইহা এক প্রকার প্রাণী, গুইসাপ সদৃশ। এরা সাত শত বৎসর পর্যন্ত বাঁচে। আশ্চর্যের ব্যাপার এই যে, জীবনে কোন সময় পানি খায় না বা পানির নিকটেও যায় না। বৎসরে দুই একবার এক আধ বিন্দু কুয়াশা খায়। চল্লিশ দিন অন্তর এক বিন্দু প্রস্রাব করে। এরা ঘরে, গাছে কিংবা পাহাড়ে থাকে। এর তৈল সংগ্রহ করে অনেকেই ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করে। এর গোশত খাওয়া জায়েয আছে।  মুয়াত্তা ইমাম মালিক, হাদিস নং ১৭৪৬


    حدثنا حفص بن عمر، حدثنا شعبة، عن أبي بشر، عن سعيد بن جبير، عن ابن عباس، أن خالته، أهدت إلى رسول الله صلى الله عليه وسلم سمنا وأضبا وأقطا فأكل من السمن ومن الأقط وترك الأضب تقذرا وأكل على مائدته ولو كان حراما ما أكل على مائدة رسول الله صلى الله عليه وسلم ‏.‏

    ইবনু ‘আব্বাস (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    একদা তার খালা রাসূলুল্লাহ্‌র (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর জন্য মাখন, পনির ও গুইসাপের গোশত পাঠালে তিনি মাখন ও পনির হতে খেলেন কিন্তু গুইসাপের গোশত খেলেন না রুচিবোধ না হওয়ায়। নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর সঙ্গে একত্রে বসে তা খাওয়া হলো। তা হারাম হলে রাসূলুল্লাহ্‌র (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়া সাল্লাম) এর সঙ্গে বসে তা খাওয়া যেতো না।
      সুনানে আবু দাউদ, হাদিস নং ৩৭৯৩
    হাদিসের মান: সহিহ হাদিস


    وحدثنا عبيد الله بن معاذ، حدثنا أبي، حدثنا شعبة، عن توبة العنبري، سمع الشعبي، سمع ابن عمر، أن النبي صلى الله عليه وسلم كان معه ناس من أصحابه فيهم سعد وأتوا بلحم ضب فنادت امرأة من نساء النبي صلى الله عليه وسلم إنه لحم ضب فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم ‏ "‏ كلوا فإنه حلال ولكنه ليس من طعامي ‏"‏ ‏.‏

    ইবনু ‘উমার (রাঃ) থেকে বর্ণিতঃ:
    একদা নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম)-এর সঙ্গে তাঁর কতিপয় সাহাবী ছিলেন। যাদের মধ্যে সা’দ (রাঃ)-ও ছিলেন। তাঁদের সম্মুখে গুইসাপের গোশ্‌ত আনা হলে নবী (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম)-এর এক স্ত্রী উচ্চৈঃস্বরে বললেন, এটা কিন্তু গুইসাপের গোশ্‌ত! তখন রসূলুল্লাহ (সাল্লাল্লাহু ‘আলাইহি ওয়াসাল্লাম) বললেনঃ তোমরা খেয়ে নাও, কারণ এটা হালাল, তবে এটা আমার খাদ্য নয়।
    ( সহিহ মুসলিম, হাদিস নং ৪৯২৬, ই.ফা. ৪৮৭৫, ই.সে. ৪৮৭৬) হাদিসের মান: সহিহ হাদিস

    যেসকল প্রানী হত্যা করা বা মেরে ফেলা নিষেধ,
    যেসকল ক্ষতিকর প্রানী হত্যা করা - মেরে ফেলা বৈধ,
    টিকটিকি মারতে হবে নাকি গিরগিটি, টিকটিকি মারার নেকি
    গুইসাপ হালাল না হারাম,
    গুইসাপ

    No comments